মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা

(পঞ্চ বার্ষিকী)

মেয়াদকাল-২০১৫- ২০২০ পর্যন্ত

 

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য(এসডিজি) পরিকল্পনা

 

 

 

২নং হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ,

পবা, রাজশাহী।

 

 

ইউনয়িন পরষিদরে ইতহিাস

বৃটশি আমলে ১৮৭০ সালে চৌকদিারী পঙ্চায়তে নাম ছিল। পরর্বতীতে বৃটশি শাসক র্লড রপিন স্থানীয় স্বায়ত্ত শাসন আইন চালুর মাধ্যমে এর নামকরণ করনে ইউনয়িন কমটি।ি ১৯১৯ সালে এর নাম পরর্বিতন করে ইউনয়িন র্বোড করা হয়। পাকস্থিান আমলে ১৯৫৯ সালে এর নাম হয় ইউনয়িন কাউন্সলি। ১৯৭২ সালে এর নামকরণ হয় ইউনয়িন পন্চায়তে এবং র্সব শষে ১৯৭৩ সালে ২২ শে র্মাচ রাস্ট্রপতরি ২২ নং আদশে জারী করে ইউনয়িন পন্চায়তেরে নাম  ইউনয়িন পরষিদ করা হয় ।একটি ইউনয়িনকে ৩ টি ওর্য়াডে বভিক্ত করা হয় । প্রতি ওর্য়াডে তনিজন করে সদস্য এবং গোটা ইউনয়িনে একজন চয়োরম্যান ও একজন ভাইস চয়োরম্যান এই মোট ১১ জন সদস্য নয়িে প্রত্যক্ষ ভোটাধকিাররে  প্রক্ষেতিে ইউনয়িন পরষিদ গঠতি হতো।

১৯৩৭ থেকে ১৯৩৮র্পযন্ত অত্র ইউনয়িন র্বোডরে ১ম প্রসেডিন্টে ছলিনে শ্রী সংকর।১৯৩৯-১৯৪৬ পর্যন্ত ২য় প্রসেডিন্টে ছলিনে ইয়াকুব আলী।১৯৪৬-১৯৫২ র্পযন্ত ৩য় প্রসেডিন্টে ছলিনে দদোর বক্স।১৯৫৩-১৯৭০  র্পযন্ত র্৪থ প্রসেডিন্টে ছলিনে বাসারতুল্লাহ সরকার।১৯৭২ সালে রাষ্ট্রপতরি আদশে নং-৭ জাররি মাধ্যমে মোলকি গণতন্ত্ররে সব কটি  সং স্থাকে ভংেগে দয়িে প্রশাসক নয়িোগ করা হয়।ইউনয়িন কাউান্সল এর নাম পরর্বিতন করে রাখা হয় ইউনয়িন পঞ্চায়তে। ১৯৭১-১৯৭২ র্পযন্ত উক্ত পঞ্চায়তেরে প্রশাসকরে দায়ত্বি পালন করনে মো: আমজাদ হোসনে। ১৯৭২-১৯৭৪ র্পযন্ত ২য় প্রশাসক হসিাবে দায়ত্বি পালন করনে মো: হারুন অর-রশদি।১৯৭৩ সালরে ২২ র্মাচ রাষ্ট্রপতি আদশে নং ২২ জারি করনে এবং এ আদশেে ইউনয়ি পঞ্চায়তে নাম পরর্বিতন করে এর নাম দয়ো হয় ইউনয়িন পরষিদ। প্রত্যাক ইউনয়িন পরষিদকে তনিটি ওয়াডে বভিক্ত করে প্রতি ওর্য়াডে ৩ জন করে ৯ জন নর্বিাচতি সদস্য এবং সমস্ত ইউনিয়নে প্রত্যক্ষ ভোটে একজন চয়োরম্যান ও একজন ভাইস চয়োরম্যান নর্বিাচতি হতনে। সে মোতাবকে ১ম চেয়ারম্যান হিসাবে নর্বিাচতি হন মুকবল হোসনে। তনিি ২০/০৩/১৯৭৪ তারখি হতে ২৮/০২/১৯৭৭ তারখি র্পযন্ত চেয়ারম্যানের দায়ত্বি পালন করনে। ২৮/০২/১৯৭৭ থকেে ২২/০২/১৯৮৪ নর্বিাচতি চয়োরম্যান হসিাবে দায়ত্বি পালন করনে জনাব মো: আমজাদ আলী।

২২/০২/১৯৮৪ তারখি থকেে ১৩/০৭/১৯৮৮ তারখি র্পযন্ত নর্বিাচতি চয়োর‌ম্যান হসিাবে দায়ত্বি পালন করনে জনাব মো: হারুন অর-রশদি।১৩/০৭/১৯৮৮ তারখিে থকেে পর পর দুইবার নর্বিাচতি হয়ে ১৬/০২/১৯৯৮ তারখি র্পযন্ত নবিাচতি চয়োরম্যান হসিাবে দায়ত্বি পালন করনে জনাব মো: জাইদুর রহমান।১৬/০২/১৯৯৮ তারখিে জনাব মো: হারুন অর-রশদি পরবতীরতে নর্বিাচতি হয়ে ০৭/০৪/২০০৩ তারখি র্পযন্ত দায়ত্বি পালন করনে। ০৭/০৪/২০০৩ তারখিে জনাব দওেয়ান মো: রজোউল করমি প্রত্যক্ষ্য ভোটে নর্বিাচতি হয়ে গত ১৮/০৮/২০১১ তারখি র্পযন্ত চয়োরম্যান হসিাবে দায়ত্বি পালন করনে।গত ০৪/০৭/২০১১ তারখিে পূনরায় নর্বিাচন অনুষ্ঠতি হয় । উক্ত নর্বিাচনে জনাব মো: গোলাম মোস্তফা চয়োরম্যান হসিাবে নর্বিাচতি হন। এবং গত ০৪/০৬/২০১৬ ইং তারখিে পূনরায় নর্চিন হয়। উক্ত নর্চিনে জনাব মোঃ আখতার ফারুক বপিুল ভোটে নর্চিতি হন।

১৯৭৬ সালরে স্থানীয় সরকার অধ্যদশেে ইউনয়িন পরষিদ গঠনে উল্লখেযাগ্য পরর্বিতন ঘটে ভাইস চয়োরম্যানরে পদ বাতলি করে প্রত্যাক ইউনয়িনে একজন নর্বিাচতি চয়োরম্যান এবং প্রতি ওর্য়াডে ৩ জন করে মোট ৯ জন নর্বিাচতি সদস্যর ব্যবস্থা রাখা হয়।

১৯৮৩ সালরে স্থানীয় সরকার(ইউনয়িন পরষিদ) অধ্যাদশে এর র্সব শষে সংশোধনী অনুযায়ী প্রতক্ষ্য ভোটে নর্বিাচতি একজন চয়োরম্যান, ৯ জন্ সাধারণ সদস্য এবং সংরক্ষতি আসনে ৩ জন মহলিা সদস্য সহ ইউনয়িন পরষিদ গঠন করা হয়।

মুখবন্ধ

 

হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ আইন’ ২০০৯ অনুযায়ী ইউপি বডির সহায়তায় গত               ২৮/০৮/২০১৬ তারিখে ইউনিয়ন পরিষদের দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার উপর ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত হয়।  ওরিয়েন্টেশনে চেয়ারম্যান, সচিব, সকল সদস্য, ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারী দপ্তরের প্রতিনিধি, বেসরকারী প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, সিবিও প্রতিনিধি ও স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা প্রণয়নে সম্মতি প্রকাশ করে। গত ৩০/০৮/২০১৬ ইং তারিখ ইউনিয়ন পরিষদ উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় ৩০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার ইউনিয়ন টাস্ক ফোর্স গঠণ করে। এর পর ইউনিয়ন পরিষদ দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার পদ্ধতি অনুসরণ করে ইউনিয়ন টাস্ক ফোর্স ও পরবর্তীতে ওয়ার্ড পর্যায়ে ওয়ার্ড রিসোর্স টিম গঠণ করে এবং তাদের দায় দায়িত্বের উপর ০১ (এক) দিনের ওরিয়েন্টেশন প্রদান করে। গ্রাম পর্যায় থেকে সামাজিক  ইস্যু/ অবস্থা চিহ্নিতকরণ, ইউপি পর্যায়ে তথ্য বিন্যাস, বিশ্লেষণ এবং প্রতিবেদন ইত্যাদি কার্যক্রমের মাধ্যমে ধারাবাহিকভাবে  হুজরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। এই  প্রক্রিয়াটি ইউপির সকল উপকারভোগী ও সাধারন জনগণের উপস্থিতিতে মতবিনিময়ের প্রেক্ষাপট তৈরী হয়।

মোঃ গোলাম মোস্তফা

চেয়ারম্যান

২নং হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ

পবা উপজেলা

রাজশাহী জেলা

কৃতজ্ঞতা স্বীকার

ইউনিয়ন পরিষদের দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার সকল কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পেরে আমরা আনন্দিত।  এ সমস্ত কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে যারা নিরলসভাবে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন হুজুরীপাড়া ইউপির পক্ষ থেকে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। বিশেষ করে কর্মশালা কার্যক্রম চলাকালীন বিভিন্ন সময়ে উপস্থিত থেকে মূল্যবান পরামর্শ ও নির্দেশনা প্রদানের জন্য মোসাঃ শামিমা বেগমের প্রতি হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে।

 

টাস্ক ফোর্স কমিটি ও ওয়ার্ড রিসোর্স টিমকে গ্রুপ ভিত্তিক কাজে সার্বিক সহযোগিতা  ও গুরুত্বপূর্ন উপদেশ ও নির্দেশনা প্রদান করায় হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ এনজিও কর্মী  মোঃ জাহাঙ্গীর কবীরকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। 

 

যাদের সার্বিক সহযোগিতার ফলে দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার কার্যক্রম যথাযথভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে  এবং এ কার্যক্রম পরিচালনায় ভেন্যু ব্যবহারের সুযোগ প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধান এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ জানাচ্ছে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।

 

সর্বোপরি হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছে কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন পেশাভিত্তিক  জনগোষ্ঠীকে যাদের মেধা ও আন্তরিক প্রচেষ্টায় দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা প্রতিবেদন প্রস্তুত করা সম্ভব হয়েছে। 

হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান,সচিব ও সদস্য/সদস্যাগনের নাম ঃ-

 মোঃ গোলাম মোস্তফা, চেয়ারম্যান

হুজরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ

পেশা ঃ ব্যবসা

কতবার নির্বাচিতঃ ২য় বার                                  

মোঃ সাকলায়েন, পদবীঃ সচিব

হুজরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ

পেশা ঃ চাকুরী

 

মোসাঃ  আলিফজান বেগম, পদবীঃ সংরক্ষিত সদস্য

ওয়ার্ড নং- ১.২.৩

পেশাঃ গৃহিনী

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোসাঃ চেনবানু , পদবীঃ সংরক্ষিত সদস্য

ওয়ার্ড নং- ৪.৫.৬

পেশাঃ গৃহিনী

কতবার নির্বাচিতঃ ২য় বার                      

মোসাঃ  তুরজেমা, পদবীঃ সংরক্ষিত সদস্য ওয়ার্ডঃ ৭.৮.৯

পেশাঃ গৃহিনী

কতবার নির্বাচিতঃ ৩য় বার

 

মোঃ ফারুক হোসেন বাবু , পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ডঃ ০১

পেশাঃ ব্যবসা

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোঃ  সাবু, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০২

পেশাঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোঃ আবুল কাশেম, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৩

পেশা ঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ৪র্থ বার

 

মোঃ ইয়ানুছ ্আলী, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৪

পেশাঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোঃ মজিবুর রহমান, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৫

পেশাঃ  ব্যবসা

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোঃ আশরাফুল, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৬

পেশা ঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ৩য় বার

 

মোঃ তাজেল আলী, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৭

পেশাঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ২য় বার                      

মোঃ গোলাম মুজাহিদ, পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৮

পেশাঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার                     

মোঃ শহিদুল ইসলাম  পদবীঃ সদস্য

ওয়ার্ড নং- ০৯

পেশাঃ কৃষি

কতবার নির্বাচিতঃ ১ম বার

 

  দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার ইউনিয়ন টাস্ক ফোর্স টিম

 

ইউনিয়ন পরিষদের দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা পরিচালনায় টাস্ক ফোর্স টিমকে সার্বিক পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন ইউপিতে কর্মরত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা, সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ইউনিয়ন সমাজকর্মী, নলকূপ মেকানিক সহ বেসরকারী সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ। ইউনিয়ন টাস্ক ফোর্স টিমের তালিকা নিম্নে দেওয়া হলো:

 

ক্র:ন:    নাম       সংস্থার / সংগঠনের নাম   পদবী

০১        মো: আখতার ফারুক       ২নং হুজুরীপাড়া ইউপি     চেয়াম্যান/ সভাপতি

০২        মোঃ  ফারুক হোসেন বাবু ’’            সদস্য

০৩       মোঃ  সাবু           ’’            ’’

০৪        মোঃ আবুল কাশেম           ’’            ’’

০৫        মোঃ  ইয়ানুছ আলী          ’’            সদস্য

০৬       মোঃ  মজিবুর রহমান       ’’            ’’

০৭        মোঃ আশরাফুল ইসলাম    ’’            ’’

০৮       মোঃ  তাজেল আলী          ’’            ’’

০৯       মোঃ গোলাম মুজাহিদ       ’’            ’’

১০        মোঃ  শহিদুল ইসলাম        ’’            ’’

১১        মোসাঃ  আলিফজান বেগম            ’’            ’’

১২        মোসাঃ চেনবানু   ’’            ’’

১৩       মোসাঃ তুরজেমা বেগম     ’’            ’’

১৪        মোঃ জামিল হাবিব          ঈমাম,দারুশা জামে মসজিদ          ”

১৫        মোঃ আকিনা বেগম         প্রধান শিক্ষক,দারুশা সঃপ্রাঃবিঃ      ’’

১৬       মোঃ নজরুল ইসলাম        প্রধান শিক্ষক,দারুশা উঃবিঃ          ’’

১৭        মোঃ  ফাইজুদ্দিন সরকার  গন্যমান্য ব্যাক্তি   ’’

১৮       মোঃ  মোশারফ হোসেন     উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা            ’’

১৯       মোঃ  রফিকুল ইসলাম      সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক   ’’

২০        মোসাঃ হাসিনা বেগম       পরিবার পরিকল্পনা সহকারী          ’’

২১        মোসাঃ মনোয়ারা বেগম    সিবিও সদস্য       ’’

২২        মোসাঃ চেনবানু বেগম      সিবিও সদস্য       ’’

২৩       মোঃ সিদ্দিক মোল্লা           সিবিও সদস্য       ’’

২৪        মোঃ মাহাবুব হোসেন        সিবিও সদস্য       ’’

২৫        মোঃ  আবুল বাসার          ইউনিয়ন সমাজ কর্মী       ’’

২৬       মোঃ  আবুল কালাম          নলকুপ মেকানিক            ’’

২৭        মোসাঃ সাহিনা খাতুন       এনজিও প্রতিনিধি,পার্টনার            ’’

২৮       মোঃ শামসুজ্জোহা  মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজসেবক ’’

২৯        মোঃ জিয়াউর রহমান      সমাজসেবক        ’’

৩০       মোঃ গোলাম সাকলায়েন   ২নং হুজুরীপাড়া ইউপি সচিব         সদস্য সচিব

       ভূমিকাঃ

 

স্থানীয় সরকারের তৃণমূল পর্যায়ের সবচেয়ে বড় ও প্রাচীনতম প্রতিষ্ঠান হলো ইউনিয়ন পরিষদ।  ইউনিয়ন পরিষদ তৃণমূল পর্যায়ের জনগনের সেবা ও বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে থাকে। ইউনিয়ন পরিষদ আইন”২০০৯ অনুযায়ী ইউপির উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা থাকা বাঞ্চনীয়।

সে লক্ষ্যে ২নং হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ ২০১৩-২০১৮ সাল পর্যন্ত ইউপির বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ৫বৎসর (পাঁচ) মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। যাহা ইউপির কার্যক্রম বাস্তবায়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

 স্থানীয় এলাকা পরিচিতিঃ

অবস্থানঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন জুয়াখালী নদীর কূল ঘেঁষে অবস্থিত। এ ইউনিয়নের উত্তরে হড়গ্রাম ইউনিয়ন, দক্ষিনে দর্শনপাড়া ইউনিয়ন, পূর্বে নওহাটা পৌরসভা এবং পশ্চিমে দামকুড়া ইউনিয়ন অবস্থিত।

আয়তনঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের আয়তন ২৮.৪১ বর্গ কিলোমিটার। এ ইউনিয়নের অন্তর্গত ওয়ার্ড, মৌজা ও গ্রামসমূহ বিস্তারিতভাবে নিম্নে দেখানো  হলোঃ

 

ওয়ার্ড নং           মৌজার নাম       গ্রামের নাম

০১        সরিষাকুড়ি        সরিষাকুড়ি,গুচ্ছগ্রাম,কলেজপাড়া,ছালগুলিপাড়া,দিঘিপাড়া,

পশ্চিমপাড়া,হাটপাড়া।

০২        কর্ণহার  কর্ণহার,বেজুড়া,সল্লাপাড়া,কৈকুড়ি,গুচ্ছগ্রাম।

০৩       কুমড়াপুকুর,স্বরমংলা

ও বাতাশমোল্লা    স্বরমংলা,গুচ্ছগ্রাম,কুমড়াপুকুর,বাতাশমোল্লা

০৪        ডাঙ্গেরহাট,মোল্লাডাইং      মোল্লাডাইং,ডাংগেরহাট,শিশাপাড়া

০৫        রাধানগর ও সাহাপুর        রাধানগর,সাহাপুর,গোধাপাড়া,বর্মত্তরপাড়া

০৬       নেপালপাড়া        নেপালপাড়া,আফিপাড়া,দেবেরপাড়া,সাইরপুকুর

০৭        করমজা,তেতুলিয়া,

তুরাপুর ও উত্তর লক্ষিপুর  করমজা,তেতুলিয়া, তুরাপুর,উত্তর লক্ষিপুর

০৮       ঘিপাড়া ঘিপাড়া,ধর্মহাটা,ঠাকুরপাড়া,মালিগাছা

০৯       হুজরীপাড়া         হুজরীপাড়া,বাজিতপুর,

 

 

 জনসংখ্যাঃ

 

এ ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ৩৪,৮৩১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৮,১২৬ জন, নারী ১৬,৬৯৯ জন। মোট পরিবারের সংখ্যা  ৬,৫৮৪ টি। এর মধ্যে অতি দরিদ্র ২,৯৪১টি, দরিদ্র ২,৫৫০টি, মধ্যবিত্ত ৯৬৫টি ও ধণী ১২৮ টি।   

এ ইউািনয়নে মোট ভোটার সংখ্যা-

শিক্ষার হার ঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে শিক্ষার হার  ৫২.২০ %।

 

বাঁধঃ

শিশাপাড়া থেকে মোল্লাডাইং ভায়া ডাঙ্গেরহাট থেকে কালিতলার বিল পর্যন্ত খালের ধার দিয়ে বাঁধ আছে। এছাড়া কুমড়া পুকুর থেকে সরমোংলা ভায়া ভাগাইল  এর মধ্য দিয়ে পুড়াখালী পর্যন্ত নদীর ধার দিয়ে বাঁধ আছে।

 

স্লুইসগেট ঃ

এই ইউনিয়নে ০২টি স্লুইসগেট আছে, স্বরমংলা ও ডাঙ্গেরহাটে অবস্থিত।

ব্রীজঃ

এই ইউনিয়নে ০৪টি ব্রীজ আছে।

 

কালভার্টঃ

এই ইউনিয়নে ৭০টিছোট বড় কালভার্ট আছে।

 

সেচ ব্যবস্থাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে গভীর নলকূপ এবং শ্যালোমেশিনের সাহায্যে সেচ ব্যবস্থা চালু আছে। গভীর নলকূপের সংখ্য ৪৯ টি এবং শ্যালো মেশিনের সংখ্য ৩২৫টি।

কৃষি ব্লকের তথ্য ঃ

হুজরীপাড়া ইউনিয়নে ০৩ টি ব্লক রয়েছে। তিনটি ব্লকের মোট আয়তন-২৮৫৬.০০ হে:। তার মধ্যে আবাদী জমির পরিমান-২২৫৩ হে:,আনাবাদী জমির পরিমান-৪৬৩.০০ হে:,একফসলী জমির পরিমান-১২০ হে:,দুই ফসলী জমির পরিমান-৯৯০.০০ হে:,তিন ফসলী জমির পরিমান-১০৯৮.০০ হে: ও তিনের অধিক ফসলী জমির পরিমান-৪৫.০০ হে:।ভ’মিহীন কৃষক পরিবারের সংখ্যা-৮৬৪ জন,ক্ষুদ্র চাষী পরিবারের সংখ্যা-৩১০৮ জন,মাঝাড়ী চাষী পরিবারের সংখ্যা-৮৭৮ জন,প্রান্তিক চাষী পরিবারের সংখ্যা-১৯১৩ জন এবং বড় চাষী পরিবারের সংখ্যা-২১ জন। মোট কৃষক পরিবারের সংখ্যা-৬,৫৮৪ টি।

 

 

 

সামাজিক সম্পদ

 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান/ পাঠাগারঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৮টি, মাদ্রাসা ৩টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২টি, নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১টি, মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ১টি, কে.জি স্কুল ২টি, বেসরকারি এনজিও স্কুল ৬টি ও কলেজ ২টি আছে।

 

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান (মসজিদ/ মন্দির/গীর্জা)ঃ

এই ইউনিয়নে মসজিদ ৫১টি, মন্দির ২টি এবং ২টি গীর্জা আছে।

ধর্মীয় জমায়েত স্থান (ঈদগাঁহ)ঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে  ২১টি স্থানে ঈদগাঁহ আছে।

 

 

কমিউনিটি ক্লিনিকঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে ০৩টি কমিউনিটি ক্লিনিক আছে।

 

ব্যাংকঃ

এই ইউনিয়নে ০২টি ব্যাংক আছে। 

 

পোস্ট অফিসঃ

এই ইউনিয়নে ০১টি পোস্ট অফিস আছে।

 

ক্লাব/সাংস্কৃতিক কেন্দ্রঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে কোন সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নেই তবে ৩টি ক্লাব আছে।

 

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাসমূহঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে যে সমস্ত বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা (এনজিও) কাজ করে আসছে সেগুলো হলো কারিতাস, পার্টনার, ব্র্যাক, আশা,  পদক্ষেপ, আশার প্রদীপ, সচেতন, এসএসডিও, গ্রামীণ ব্যাংক, পিডিও, ওয়ার্ল্ড ভিশন ইত্যাদি।

 

হাট/বাজারঃ

এই ইউনিয়নে ০২ হাট আছে কিন্তু কোন বাজার নাই। হাটগুলি হলো  দারুশা ও ডাঙ্গেরহাট   হাট নামে পরিচিত।

 

খেলার মাঠঃ

এই ইউনিয়নে ১০টি খেলার মাঠ আছে।

 

কবরস্থান/ শ্মশানঘাটঃ

এই ইউনিয়নে ১৫টি কবরস্থান ও ২টি শ্মশানঘাট আছে।

 

দুস্থঃ আশ্রয় কেন্দ্রঃ

এই ইউনিয়নে কোন দুস্থঃ আশ্রয় কেন্দ্র নেই।

 

কৃষি ও খাদ্যঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের প্রধান ফসল হলো ধান, গম, আলু, ভুট্টা প্রভৃতি। এছাড়া মশুর, সরিষা, পেঁয়াজ, মরিচ, বাঁধাকপি, ফুলকপি, বেগুন ইত্যাদির চাষ করা হয়। প্রধান খাদ্য ভাত, রুটি , আলু।

 

মৎস্য চাষঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত পুকুরে মাছ চাষ করা হয়। যেমনঃ রুই, কাতলা, মৃগেল, সিলভার কার্প, গ্রাস কার্প, মাগুর, ব্রীগেট, পাঙ্গাস, তেলাপিয়া ইত্যাদি।

 

পশুপালনঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের জনগন গরু, মহিষ, ছাগল, ঘোড়া, হাঁস, মুরগী ইত্যাদি পালন করে থাকে।

 

খামারঃ

এ ইউনিয়নে ১২টি মুরগী ও ৪টি গরুর খামার আছে। ইউনিয়নে আছে মোট গরু ৫,৫৩৫টি, মহিষ ২,২০০টি, ছাগল ৮,৯২৩টি,ভেড়া ২৩০টি, হাঁস ৮,৭৮০টি ও মুরগী ৩৫,৭৫৪টি।

 

স্বাস্থ্যসেবাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বিভিন্ন এনজিও সংস্থার  স্বাস্থ্য কর্মীদের মাধ্যমে এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান কর্মকান্ড চালু আছে।

 

রোগ ব্যাধিঃ

মানুষের রোগব্যাধির মধ্যে বসন্ত, আমাশয়, ডায়রিয়া, জ্বর, টাইফয়েড, সর্দি-কাশিসহ আরো অনেক রোগব্যাধি লক্ষ্য করা যায়। গৃহপালিত পশুর রোগব্যাধির মধ্যে ক্ষুরা, কৃমি, রানীক্ষেত, পিপিয়ার প্রভৃতি পরিলক্ষিত হয়।

 

আর্সেনিক দূষনঃ

এলাকার লোকজনের ও বিভিন্ন সংস্থার জরিপ রিপোর্টে দেখা যায় হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের কর্ণহার,বাজিতপুর এলাকায় নলকুপের পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক আছে।

 

পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের ৯০% মানুষ খাবার ও অন্যান্য কাজে নলকূপ ও গভীর নলকূপের পানি ব্যবহার করে।  ইউনিয়নের মোট নলকূপ সংখ্যা ১০৮৪টি। এর মধ্যে গভীর নলকূপ ৪৮টি ও অগভীর নলকূপের সংখ্যা ১,০৩৬টি। হুজরীপাড়া ইউনিয়নে পায়খানার সংখ্যা ৫,২২৫টি, এর মধ্যে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ২,৫০০টি ও অস্বাস্থ্যকর পায়খানা ২,৭২৫টি।

 

পুষ্টিঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বর্তমানে পুষ্টি বিষয়ক কোন কার্যক্রম চালু নেই।

 

লবনাক্ততাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের পাশ দিয়ে কোন সাগর না থাকায় এখানে লবনাক্ততা নেই।

 

ভৌত বৈশিষ্ট ও মাটির ধরণঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নটি মূলত: সমতল। এখানে নদী, খাল ,বিল আছে। হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের ২০% এলাকা বেলে, ৫০% মাটি বেলে দো আঁশ এবং ২০% এঁটেল মাটি ।

 

 

ভূমি ও ভূমির ব্যবহারঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে মোট ভ’মির পরিমান ২৮৫৬.০০ হে:। । এর মধ্যে আবাদী জমির পরিমাণ ২,২৫৩ হেক্টর, এক ফসলী জমির পরিমাণ ১২০ হেক্টর, দুই ফসলী জমির পরিমাণ ৯৯০ হেক্টর, তিন ফসলী জমির পরিমাণ ১০৯৮ হেক্টর,তিন এরম অধিক ফসলী জমির পরিমাণ ২০হেক্টর ।

নদীঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বারনই ও জুয়াখালী নদী আছে।

পুকুরঃ

এই ইউনিয়নে ২টি খাসপুকুর এবং ৪১৩টি ব্যক্তি মালিকানাধীন বড় পুকুর আছে।

খালঃ

এই ইউনিয়নে খাল আছে ০৫টি, যথা:

(ক) কুমড়াপুকুর  ভায়া স্বরমংলা হয়ে পোড়াখালী পর্যন্ত খাল। (৫কিলোমিটার)

(খ) শিশাপাড়া ভায়া মোল্লাডাইং হয়ে কালিতলার বিল পর্যন্ত খাল। (১২ কিলোমিটার)

(গ) শাহাপুর ভায়া সাইরপুকুর হয়ে ডাঙ্গেরহাট স্লুইস গেট পর্যন্ত খাল।  (৫কিলোমিটার)

(ঘ) ঘিপাড়া মাড়গালা বিল ভায়া সরলপুকুর ও জোড়গাছ বটতলা হয়ে স্লুইস গেট পর্যন্ত 

 

     খাল। (৪কিলোমিটার)

(ঙ) বড় বিল গুচ্ছগ্রাম ভায়া পুরাতন স্লুইস গেট হয়ে বাগধানী পর্যন্ত খাল। (৬কিলোমিটার)

 

বিলঃ

এই ইউনিয়নে বিলের সংখ্যা ০৫টি। যথাঃ কালিতলা বিল, নেপালপাড়া বিল, স্বরমংলার বিল, ঘিপাড়া মাড়গালার বিল  ও দারুসা বড় বিল।

 

জলাশয়ঃ

কালিতলার বিল ও দারুশা বড় বিলে জলাশয় আছে।

হাওড়ঃ

হুজুরীপাড়া  ইউনিয়নে কোন হাওড় নেই।

 

যোগাযোগ ব্যবস্থাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে পাকা রাস্তার পরিমাণ  ৩০ কিলোমিটার পাকা, ৫কিলোমিটার আধা পাকা ও ১০  কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা আছে।

পরিবহনের মাধ্যমঃ

এই ইউনিয়নের জনগন ভ্যান, রিক্্রা, টেম্পু, ভুটভুটি, নসিমন, করিমন, মিশুক, অটো চার্জার ইত্যাদি যানবাহনের মাধ্যমে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করে।

 

বিদ্যুৎ ব্যবস্থাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের প্রায় ৯০% মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পেয়ে থাকে। যে সমস্ত এলাকায় বিদ্যুৎ নেই সে সমস্ত এলাকায় বিদ্যুৎ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

 

টেলিযোগাযোগ/ মোবাইলঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে টেলিযোগাযোগ নাই তবে মোবাইল ব্যবস্থা চালু আছে।

 

জীব ও বৈচিত্রঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বন্য পশু পাখির উপস্থিতি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ব্যাপক ভূমিকা পালন করে। অবশ্য প্রাকৃতিক দূর্যোগ এবং মানুষের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের প্রভাবে বন্য প্রাণীর আবাসভূমি ও এলাকা ধীরে ধীরে হ্রাস পাচ্ছে।

 

 গাছপালাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে আম, লিচু, কাঠাল, নারিকেল, কলা, পেঁপে, কড়ই, মেহগনি, শিশুসহ বিভিন্ন ধরনের গাছপালা দেখতে পাওয়া যায়।

 

মৎস্য সম্পদঃ

এই ইউনিয়নে মাগুর, চিতল, কাল বাউস, রুই, পাঙ্গাস, বোয়াল, সিলভার কার্প, মিনার কার্প, বিদেশী পুটি, তেলাপিয়া ইত্যাদি মাছ পাওয়া যায়।

 

পাখিঃ

মাছরাঙ্গা, পানকৌড়ি, বাবুই, চিল, কাক, পেঁচা, চড়–ই, কোকিল, ময়না, শালিক, দোয়েল ইত্যাদি দেখতে পাওয়া যায়।

 

আবহাওয়া ও জলবায়ু

 

বৃষ্টিপাতের ধারাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের লোকেরা বলেছে যে বৃষ্টিপাতের ধারার পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে ছয় বছর আগেও আষাঢ় শ্রাবন মাসে প্রচুর বৃষ্টিপাত হতো কিন্তু বর্তমান সময়ে তা চোখে পড়েনা। আগের চেয়ে বর্তমানে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে গেছে। এবং আবহাওয়ার একটা বিরূপ প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সময়ের চেয়ে অসময়ে বৃষ্টিপাত বেশী হয়।

 

ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তরঃ

এলাকা ভিত্তিতে  ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তরের পরিবর্তন হয়। কোন কোন এলাকায় ৯০-১০০ ফুটের মধ্যে পানি পাওয়া যায়। কোন কোন এলাকায় পানির স্তর আরও নীচে নেমে গেছে অর্থাৎ  ১৫০-২২০ ফুট নীচে পানি পাওয়া যায়।

 

খরা প্রবনতা ও ভবিষ্যত চিত্রঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে ফাল্গুন, চৈত্র, বৈশাখ ও জৈষ্ঠ্য মাসে খরা হয়। দিন দিন খরার তীব্রতা ও স্থায়ীত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিগত কয়েক বছরে আষাঢ় শ্রাবন মাসেও বৃষ্টি হচ্ছে না। যার ফলে খরায় ক্ষতির পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই খরার প্রবণতা দিনের পর দিন স্থায়ীত্ব ও বৃদ্ধি পেতে থাকলে ভবিষ্যতে এই এলাকায়পরিবেশ বিপর্যয় দেখা দিতে পারে।

 

শৈত্য প্রবাহের প্রবণতা ও ভবিষ্যত চিত্রঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে প্রতি বছর শীত মৌসুমে ব্যাপক শৈত্য প্রবাহ হয়  এর ফলে বর্তমানে আমের মুকুল, লিচুর মুকুল ও   বিভিন্ন রবি মৌসুমের ফসল ও মানুষের জনজীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে ফসল, গাছপালাসহ মানুষের জীবন যাত্রায় ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

 

তাপদাহের প্রবণতাঃ

বর্তমানে হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে তাপদাহের প্রবণতার পরিবর্তন হয়েছে। চৈত্র, বৈশাখ ও জৈষ্ঠ্য মাসে এখানে প্রচন্ড তাপদাহ হয়। যা আগের তুলনায় অনেক বেশী। এ ছাড়া  আষাঢ় শ্রাবন ও ভাদ্র মাসেও প্রচন্ড খরা বিরাজমান করে যা আগের তুলনায় অনেক বেশী। বছর বছর এর প্রবণতা বেড়েই চলেছে যা ফসলের, গাছপালা এবং মানুষের জীবন যাপনের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। তাপদাহের প্রবণতা বছর বছর এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে এই এলাকার পরিবেশের ভয়াবহ বিপর্যয় হবে বলে এলাকাবাসীর অভিমত।

 

কালবৈশাখীঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বিগত কয়েক বছর আগে কালবৈশাখী ঝড় হতো ২/৩ বছর পর পর। কিন্তু ২০০৬ সাল হতে প্রতি বছর কালবৈশাখী ঝড়ের আঘাত হানে। এতে আম, লিচুসহ অন্যান্য কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। এভাবে প্রতি বছর কালবৈশাখী ঝড় সংঘঠিত হলে এলাকার মানুষের চরম বিপর্যয় দেখা দিবে।

 

জলাবদ্ধতাঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে প্রতি বছর জলাবদ্ধতা সংঘটিত হয়। আষাঢ় মাস থেকে কার্তিক মাস পর্যন্ত বন্যা ও অতি বৃষ্টির কারণে জলাবদ্ধতা হয়। এর কারণে কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। এভাবে প্রতি বছর জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হলে ভবিষ্যতে হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে চরম বিপর্যয় দেখা দিতে পারে।

 

স্থানীয় সমাজ ও জনগোষ্ঠী সম্পর্কিত বিবরণঃ

 

সামাজিক স্তর বিন্যাসঃ

এ ইউনিয়নে সামাজিকভাবে প্রত্যেক মানুষ সমান নয়। এ ভিন্নতাই সামাজিক স্তর বিন্যাসের সৃষ্টি করেছে। সম্পদ, ক্ষমতা ও মর্যাদার উপর ভিত্তি করে সমাজের মানুষের মধ্যে উঁচু, নীচু শ্রেণী বা পার্থক্য সৃষ্টি হয়। এখানে মধ্যবিত্ত এবং বেশীরভাগ নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর বসবাস। রাজনৈতিক ও বংশগত কারণে কিছু লোক সম্মান ও মর্যাদা লাভ করে থাকে।

 

নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠিঃ

নৃতাত্বিক বৈশিষ্টের কিছু সাওতাল ও খৃষ্টান উপজাতি হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বসবাস করে।

 

ধর্ম/ সামাজিক দলঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে মূলতঃ হিন্দু, মুসলিম ও খ্রিস্টান সমাপ্রদায়ের লোক বসবাস করে। এখানে হিন্দু, মুসলিম ও খ্রিস্টান সমাপ্রদায়ের লোক স¤প্রীতির সাথে দীর্ঘ দিন যাবৎ বসবাস করে আসছে।  খ্রিস্টান ধর্মের আচার অনুষ্ঠান মিশনারী কেন্দ্রিক হয়ে থাকে। তাছাড়া কামার, মুচি, কুমার, জেলে, দিনমজুর, ব্যবসায়ী প্রভৃতি লোকের বাস লক্ষ্য করা যায়।

 

লিঙ্গ বৈষম্যঃ

এ ইউনিয়নে লিঙ্গ বৈষম্য তেমন প্রকট নয়। কিন্তু নারী পুরুষের সামাজিক মর্যাদা ও সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের ভিন্নতা দেখা যায়। পারিবারিক ও সামাজিক বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে সালিশ, বিচার, বিবাহ, সন্তান গ্রহণ, জন্ম নিয়ন্ত্রন প্রভৃতি ক্ষেত্রে নারীদের মতামতের তেমন ভূমিকা নেই। নারীর ক্ষমতায়ন ও নারীকে স্বাবলম্বী করণে বিভিন্ন এনজিও কার্যক্রমের মাধ্যমে দিন দিন এ চিত্রের উন্নতি হচ্ছে।

 

সামাজিক মূল্যবোধঃ

সময়ের সাথে সাথে সামাজিক মূল্যবোধ পরিবর্তিত হয়ে থাকে। তবুও হুজুরীপাড়া ইউনিয়নের সমাজ ব্যবস্থায় সামাজিক মূল্যবোধ ভালো, মন্দ ও ধর্মীয় অনুশাসন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। ছোটরা বয়োজ্যেষ্টদের সম্মান করে, সালাম দেয়, ধর্ম বিরোধী কার্যকলাপকে তারা প্রশ্রয় দেয় না, স্ত্রীরা স্বামীকে মান্য করে, নারীরা সাধারণত: অন্য পুরুষ দেখলে মাথায় ঘোমটা টেনে দেয়। তবে অনেকের মতে সামাজিক মূল্যবোধ বর্তমানে কমে যাচ্ছে।

 

প্রথাগত ও আইনগত অধিকারঃ

প্রথাগতভাবে নারীদের চেয়ে পুরুষের কাজের অধিকার বেশী। বাইরে পুরুষেরা অবাধে চলাফেরা করে; নারীদের পদচারনা সে ক্ষেত্রে কম। মুসলিম ও হিন্দু ধর্ম মতে সম্পত্তির অধিকার নির্ধারিত হয়। আইনগত জটিলতার ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পর্যায়ে বিভিন্ন সমস্যার সামাজিক সমাধান নিষ্পন্ন হয়।

 

 

অর্থনৈতিক কর্মকান্ড ও পেশাঃ

এ ইউনিয়নের  অর্থনৈতিক উৎসের মূল ভিত্তি কৃষিকে কেন্দ্র করে আবর্তিত।এখানকার শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কৃষি কাজের সাথে জড়িত। দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষ জীবিকা নির্বাহ করে কৃষিকাজ, রিক্রাা, ভ্যান ও অটো চার্জার গাড়ি চালিয়ে, খাল, বিল ও  নদীতে কিছু লোক মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে। এছাড়া কিছু লোক পোল্ট্রি ও কুটির শিল্পের মাধ্যমে  জীবিকা নির্বাহ করে।

সামাজিক আচার অনুষ্ঠানঃ

এ ইউনিয়নের  বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান প্রচলিত আছে। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো বিবাহ অনুষ্ঠান, মিলাদ মাহফিল, নবান্ন উৎসব, পহেলা বৈশাখ কেন্দ্রিক মেলা, হিন্দুদের বার মাসে তের পুঁজা এবং খ্রিস্টানদের বড় দিনের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

 

ধর্মীয় কর্মকান্ডঃ

হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে সব ধরনের ধর্মীয় কর্মকান্ড প্রচলিত আছে। যেমনঃ মুসলমানদের ঈদ, শব-ই-বরাত, শব-ই-কদর, ঈদে মিলাদুন্নবী, মিলাদ মাহফিল, ধর্মীয় মাহফিল, হিন্দুদের বার মাসে তের পুঁজা এবং খ্রিস্টানদের বড় দিন ও প্রতি রবিবার চার্চে উপাসনার জন্য যাওয়া ইত্যাদি  ধর্মীয় কর্মকান্ড প্রচলিত আছে।

 

 ভিশন ঃ

 

এমন একটি আদর্শ ইউনিয়ন গড়ে উঠবে যেখানে জনঅংশগ্রহনের মাধ্যমে উন্নত যোগাযোগ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং নারীর ক্ষমতায়ন বৃদ্ধির মধ্যে দিয়ে দারিদ্রতা হ্রাস ঘটবে।

 

মিশন ঃ

 

ইউনিয়ন পরিষদ ও সরকারী  বেসরকারী  সকল সহযোগী  প্রতিষ্ঠান এর সহযোগিতায় জনগনের সচেতনতা বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে উন্নত শিক্ষা, আধুনিক কৃষি ব্যবস্থাপনা, কার্যকরী যোগাযোগ ও পরিবেশগত উন্নয়ন।

 

দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত কর্ম পরিকল্পনার প্রক্রিয়া ঃ

 

ক্স         ইউনিয়ন পরিষদ আইন’ ২০০৯ এর আলোকে ইউপি পর্যায়ে দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা;

ক্স         দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার জন্য ইউপি ও ওয়ার্ড পর্যায়ে ওয়ার্কিং টীম গঠণ;

ক্স         গ্রাম ও ওয়ার্ড পর্যায়ে চাহিদা/ তথ্য সংগ্রহ/ প্রতিবেদন প্রস্তুত;

ক্স         ওয়ার্ড পর্যায়ে সামাজিক মানচিত্রের মাধ্যমে সম্পদের অবস্থা চিহ্নিতকরণ;

ক্স         ওয়ার্ড সভার মাধ্যমে জনগণের মতামত যাচাই;

ক্স         ইউপি পর্যায়ে উপকারভোগীদের মতামত গ্রহণ;

ক্স         ৫দিন ব্যাপী ওয়ার্কিং গ্রুপের মাধ্যমে দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার বিভিন্ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন; 

ক্স         ভিশন/ মিশন নির্ধারণ;

ক্স         ইউপির সামর্থ্য/ দূর্বলতা/ সুযোগ/ ঝুঁকি উওোরনের উপায় নির্ধারণ;

ক্স         অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ইস্যু নির্ধারণ ও পরিকল্পনা তৈরী;

ক্স         দীর্ঘ মেয়াদী কৌশলগত পরিকল্পনার খসড়া প্রতিবেদন তৈরী;

ক্স         সর্বস্তরের জনগণের সাথে উক্ত খসড়া প্রতিবেদন শেয়ার ও মতামত গ্রহণ;

ক্স         চুড়ান্ত দীর্ঘ মেয়াদী  কৌশলগত পরিকল্পনা তৈরী ও অনুমোদন।

 

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য(এসডিজি) পরিকল্পনার চিহ্নিত সমস্যা/ ইস্যু সমূহ ঃ

 

ক্স         দারিদ্র বিমোচন

ক্স         ক্ষুধা মুক্তি

ক্স         সু-স্বাস্থ্য

ক্স         মান সম্মত শিক্ষা

ক্স         লিংগ সমতা

ক্স         সুপেয় জল ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা

ক্স         নবায়ন যোগ্য ও ব্যয়সাধ্য জ্বালানী

ক্স         ভাল চাকুরী ও অর্থনীতি

ক্স         উদ্ভাবন ও উন্নত অবকাঠামো        ক্স         বৈষম্য হ্রাস

ক্স         টেকসই নগর ও সম্প্রদায়

ক্স         সম্পদের দায়ীত্ব পূর্ণ ব্যবহার

ক্স         জলবায়ু বিষয়ে পদক্ষেপ

ক্স         ভুমির টেকসই ব্যবহার

ক্স         শান্তি ও ন্যায় বিচার

ক্স         টেকসই উন্নয়নের জন্য অংশীদারিত্ব

 

 

 

 

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চিহ্নিত সমস্যা/ ইস্যুঃ

ক্স         দারিদ্র বিমোচন

ক্স         ক্ষুধা মুক্তি

ক্স         সু-স্বাস্থ্য

ক্স         মান সম্মত শিক্ষা

ক্স         সুপেয় জল ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা

ক্স         নবায়ন যোগ্য ও ব্যয়সাধ্য জ্বালানী

ক্স         উদ্ভাবন ও উন্নত অবকাঠামো

 

ইস্যু ভিত্তিক কার্যক্রমঃ 

হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ,পবা রাজশাহীর ইস্যু গুলোর আলোকে কার্যক্রম/ প্রকল্প অর্থ বছর অনুযায়ী নির্ধারণ করা হয়।

লক্ষ্য-০১ দারিদ্র বিমোচন

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      সেলাই মেশিন প্রশিক্ষন ও উপকরণ বিতরণ ৩০ জন দরিদ্র উপজাতীকে বাঁশ ও বেতের প্রশিক্ষন ও উপকরণ বিতরণ            ৩০ জন দরিদ্র ব্যকিতকে মৌ চাষ প্রশিক্ষন প্রদান      কারিগরী প্রশিক্ষন প্রদান ও বিদেশী ভাষা শিক্ষা         বিভিন্ন প্রশিক্ষন প্রাপ্ত দরিদ্র ব্যক্তিদের মাঝে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সরবরাহ।

 

লক্ষ্য-০২ ক্ষুধা মুক্তি

 

ক্রমিক নং ওয়ার্ড নং ২০১৫-১৬ ২০১৬-১৭ ২০১৭-১৮ ২০১৮-১৯  ২০১৯-২০ ০১    ১-৯      ফসল উৎপাদনে আধুনিক প্রশিক্ষন প্রদান     খাদ্যের পুষ্টি বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধি মূলক প্রশিক্ষন প্রদান      অতি দরিদ্র ব্যক্তিদের মাঝে স্বল্প মূল্যে বা বিনা মূল্যে ত্রান বিতরণ            বাড়ীর আংগিনায় হাঁস- মুরগী পালন ও সবজী চাষ প্রশিক্ষন প্রদান।      কৃষকদেরকে লাভজনক ফসল উৎপাদনে উৎসাহ প্রদান।

 

লক্ষ্য-০৩ সু-স্বাস্থ্য

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ০৮       ঘিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসক ও রুগীদের বসার জন্য চেয়ার বিতরণ  ঘিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে সাবমার্সিবুল পাম্পের সাহায্যে পানির লাইন স্থাপন।   ঘিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকের সীমানা প্রাচীর নিমান।           ঘিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে প্রয়োজনীয় ঔষুধ সরবরাহ।          ঘিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে অপারেশন যন্ত্রপাতি সরবরাহ

০২        ১-৯      স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার রিং স্ল্যাব বিতরণ-৯০ সেট   স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার রিং স্ল্যাব বিতরণ-১২০ সেট স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার রিং স্ল্যাব বিতরণ-১৫০ সেট      স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার রিং স্ল্যাব বিতরণ-২২৫ সেট  স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার রিং স্ল্যাব বিতরণ-২৭০ সেট

০৩       ০৭        তেতুলিয়া কমিউনিটি ক্লিনিকে ফ্যান সরবরাহ।        তেতুলিয়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে সাবমার্সিবুল পাম্পের সাহায্যে পানির লাইন স্থাপন।        তেতুলিয়া কম্উিনিটি ক্লিনিকের সীমানা প্রাচীর নিমান।        তেতলিয়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে প্রয়োজনীয় ঔষুধ সরবরাহ।          তেতুলিয়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে অপারেশন যন্ত্রপাতি সরবরাহ

০৪        ০৬       আফিপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকে ফ্যান সরবরাহ।       আফিপাড়াকম্উিনিটি ক্লিনিকে সাবমার্সিবুল পাম্পের সাহায্যে পানির লাইন স্থাপন।        আফিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকের সীমানা প্রাচীর নিমান।       আফিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে প্রয়োজনীয় ঔষুধ সরবরাহ।          আফিপাড়া কম্উিনিটি ক্লিনিকে অপারেশন যন্ত্রপাতি সরবরাহ

 

লক্ষ্য-০৪-মানসম্মত শিক্ষা

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      বিভিন্œ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ সরবরাহ-৫০ সেট

             ১। বয়স্ক শিক্ষার বিষয়ে উৎসাহ প্রদান ও শিক্ষা কেন্দ্র চালু।

২। বিভিন্œ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ সরবরাহ-৫০ সেট   এনজিও পরিচালিত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো নিয়মিত পরিদর্শনের ব্যবস্থা          ঝরে পড়া শিশুদের মান সম্মত শিক্ষার আওতায় আনা।    অভিভাবক সমাবেশ করে শিক্ষার ব্যাপারে উৎসাহ প্রদান।

০২        ০২        ------------        ---------            কর্ণহার  উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান ।      ছাত্র/ছাত্রীদের পৃথক টয়লেট নির্মান। কর্ণহার উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের জন্য কমন রুম নির্মান।

০৩       ০৪        -----------------   --------------       ডাংগেরহাট মহিলা কলেজের সীমানা প্রাচীর নির্মান।  শিশাপাড়া প্রাঃ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান।     ----------

০৪        ০৫        -----------          ------------         দারুশা উচ্চ বিদ্যালয়ে ফাইল ক্যাবিনেট সরবরাহ।    দারুশা প্রাঃ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান।    --------------

০৫        ১-৯      --------------       ---------------     শিক্ষা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির নিয়মিত স্কুল পরিদর্শনের ব্যবস্থা গ্রহন।   মা অথবা অভিবাবক সমাবেশ করে শিক্ষার্থীদের স্কুলে উপস্থিতি বৃদ্ধি করা।         সকল খেলা মাঠ সংস্কার করা

 

লক্ষ্য-০৫- লিংগ সমতা

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      নারী শিক্ষার প্রসার ঘটানো           নারী পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সমতা বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন।            ১।  নারীদের নেতৃত্ব বিকাশের জন্য প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা।

             নারী ফোরাম গঠন করা।            বাল্য বিবাহ ও বহুবিবাহ  প্রতিরোধে অভিভাবকদের  নিয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন।

 

 

              

 

 

 

             লক্ষ্য-০৫- সুপেয় জল ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ০১        ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে নলকুপ স্থাপন।         প্ইাপ লাইনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ            স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট           প্ইাপ লাইনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ            স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট

            ০২        ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে রিং পাইপ সরবরাহ   ১। প্ইাপ লাইনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       ২ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে ০৩ টি নলকুপ স্থাপন।      প্ইাপ লাইনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ

            ০৩       স্বরমংলা খাইরুলের বাড়ী হতে পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদ  পর্যন্ত পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেন নির্মান।        ১। ৩ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে ০৩ টি নলকুপ স্থাপন।

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ৪। স্বমংলা মধ্যপাড়া জামে মসজিদ হতে জবেদের পুকুর পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।       ১। ওয়ার্ডের  বিিিভন্ন স্থানে পানি নিষ্কাশনের জন্য রিং পাইপ স্থাপন।

২। ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে নলকুপ স্থাপন      ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে নলকুপ স্থাপন

 

            ০৪        স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       ১। ৪নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে ০৪ টি নলকুপ স্থাপন।

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ১। ডাংগের হাট আজিজুলের বাড়ী হতে কুলপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।        ১। মোল্লাডাইং পাতি পুকুর হতে নুর বক্স্রের বাড়ী পর্যন্Í ড্রেন

নির্মান।             ২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।

            ০৫        স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       ১। জলাবদ্ধতা দুর করণের জন্য বিভিন্ন স্থাানে রিং পাইপ সরবরাহ।

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ১। সাহাপুর মসজিদ হতে মুন্টুর বাড়ী পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।

২। নলকুপ স্থাপন।

            জলাবদ্ধতা দুর করণের জন্য বিভিন্ন স্থাানে রিং পাইপ সরবরাহ।       জলাবদ্ধতা দুর করণের জন্য বিভিন্ন স্থাানে রিং পাইপ সরবরাহ।

            ০৬       স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       ১। নেপালপাড়া ছপেরের বাড়ী হতে মসজিদ পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে আরসিসি রিং পাইপ সরবরাহ  নেপালপাড়া মেরাজের বাড়ী হতে পাকা রাস্তা পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।            ১। ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে আরসিসি রিং পাইপ সরবরাহ।

২। দেবেরপাড়া গিয়াসের বাড়ী হতে লল্যাপুকুর পর্যন্ত ড্রেন।

            ০৭        স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।     পাইপ লাইনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ।   ১। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ১। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।

            ০৮       স্যানিটারী ল্যট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ-৩০ সেট       স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।     পাইপ লাইনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ।   ১। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            ১। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।

            ০৯       ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে আরসিসি রিং পাইপ সরবরাহ।            ১। ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে নলকুপ স্থাপন

২। স্যানিটারী ল্যাট্রিনের রিং স্ল্যাব বিতরণ।            সাবমার্সিবল পাম্পের সাহায্যে পাইপ লাইন স্থাপন।    বাজিতপুর ফজলুর বাড়ী হতে বাবুর বাড়ীর কালভার্ট  ভায়া জুলমতের বাড়ী  পর্যন্ত ড্রেন নির্মান।      সাবমার্সিবল পাম্পের সাহায্যে পাইপ লাইন স্থাপন।

 

 

                  লক্ষ্য-০৬- নবায়ন যোগ্য ও ব্যয়সাধ্য জ্বালানী

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      বিভিন্œ মসজিদ ও মাদ্রাসায় বিদ্যুৎ সা¯্রয়ের জন্য সোলার প্যানেল    বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সা¯্রয়ের জন্য সোলার প্যানেল   প্রত্যেক বাড়ীতে বন্ধু চুলা স্থাপনের বিষয়ে উৎসাহ প্রদান করা জ্বালানী ব্যয় কমানোর জন্য ৩০ টি বাড়ীতে বন্ধু চুলা স্থাপন।  জ্বালানী ব্যয় কমানোর জন্য ৩০ টি বাড়ীতে বন্ধু চুলা স্থাপন।

 

        লক্ষ্য-০৭- উদ্ভাবন ও উন্নত অবকাঠামো

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ০১        শরিষাকুড়ি হঠাৎপাড়া তিন মাথার মোড় থেকে মেঘুর বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।         ১। পশ্চিমপাড়া আবুলের বাড়ী হতে ঈদগাহ্ পর্যন্ত পাকা রাস্তা।

২। শরিষাকুড়ি নতুন মসজিদ হতে মুতাজ্জেলের বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।            ১। পশ্চিমপাড়া ঈদগাহ হতে মানছারের ডিপ পর্যন্ত পাকা রাস্তা

২। শরিষাকুড়ি মুকুলের বাড়ী হতে

পশ্চিমপাড়া  মসজিদ পর্যন্ত  ব্যাটস্ রাস্তা।    ১। পশ্চিমপাড়া  বাবুর বাড়ীর বাড়ীর সামনে পুকুরপাড়ে প্রটেকশান ওয়াল

২। নজমুলের বাড়ীর সামনে প্রঃওয়াল নির্মান।          দিঘিপাড়া বিলের ধারে আক্কাসের পুকুরপাড়ে ও সেরাজ মেম্বারের পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল

০২        ০২        কর্ণহার সাজুর বাড়ীর পুকুরপাড়ে রাস্তার ধারে প্রটেকশান ওয়াল নির্মান।          ১। কর্ণহার বটতলা হতে কাটানী পুকুর শান্তির বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।

২। কর্ণহার সাদিয়ারের বাড়ীর সামনে প্রঃওয়াল নির্মান          কর্ণহার সহিদুল হাজীর বাড়ীর হতে বেজুড়া ্আক্কাসের বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।   ১। কর্নহার আজরুলের বাড়ীর সামনে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। বেজুড়া সল্লাপুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।            ১। কৈকুড়ি আরেজুলের পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। সাহাপুর নরেনের বাড়ীর পার্শ্বে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

            ০৩       স্¦রমংলা আলী হাজীর বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল  ১। স্বরমংলা লালমনের মোড় হতে আঃ হাকিমের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

২। বাতাশমোল্লা মজিবরের বাড়ী হতে মাসুদের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

৩। বাতাশমোল্লা জহুর হাজীর আমবাগান হতে শিশাপাড়াডাইং পাকা রাস্তা পর্যন্ত মাটির রাস্তা।    ১। স্বরমংলা চড়কপুকুরপাড়ে রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। স্বরমংলা কাজিমের পুকুরপাড়ে রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল

৩। স্বরমংলা ইসবের বাড়ীর সামনে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল

            ১। বাতাশমোল্লাা গোলাপের বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। স্বরমংলা ল্যাটা বটতলা হতে পাশখাড়ী পর্যন্ত মাটির রাস্তা।

            ১। স্বরমংলা  আতাহারের মোড় হতে আনসারের খানকা পর্যন্ত মাটির রাস্তা।

২। কুমড়াপুকুর রেলগেট হতে আদর্শ গ্রাম শেষ মাথা পর্যন্ত মাটির রাস্তা।

৩।  স্বরমংলা আনোয়ারের দোকানের সামনে রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

            ০৪        ১। ডাংগের হাট সেলিমের বাড়ী থেকে সামুর বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। মোল্লাডাং ভাটার পুকুরপাড়ে রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।           ১। ডাংগেরহাট আতাহারের বাড়ী হতে ব্রীজ পর্যন্ত প্রঃওয়াল নির্মান।

২। মোল্øাডাইং ্ঈদগাহ্ এর সীমানা প্রাচীর নির্মান।           ১।্ ডাংগেরহাট মুসলেমের বাড়ী হতে কালিতলা বিল পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

২। মোল্লাড্ইাং নজরুলের বাড়ী হতে শেখ পাড়া জামে মসজিদ পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

            ১। শিশাপাড় একরামের বাড়ী হতে আক্কাসের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। শিশাপাড়া আশরাফের বাড়ী হতে সাজাহানের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। শেখপাড়া তমিরের বাড়ী হতে গোরস্থান পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।          ১। শিশপাড়া টুকু হাজীর বাড়ী হতে শহিদুল আদায়কারীর বাড়ী পর্যন্ত রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। শিশাপাড় হ্যাচারী হতে মসজিদ পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

৩।। ঘুনপাড়া মসজিদ হতে আসাদের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

৪। ডাংগেরহাট মজিদের বাড়ীর দক্ষিন পার্শ্বে প্রঃওয়াল।

            ০৫        সাহাপুর চকচকা পুকুরের পূর্বপাড়া রাস্তার ধারে প্রটেকশান ওয়াল নির্মান।         সাহাপুর চকচকা পুকুর হতে মসজিদ পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং          ১। বরমত্তরপাড়া পাকা রাস্তা হারুনের বাড়ী হতে সামুর বাড়ী  পর্যন্ত।  ১। সাহাপুর ধনতলা হতে শামসুলের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। বরমত্তরপাড়া জয়নালের বাড়ী হতে সুরামিন এর বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং   গোধাপাড়া ভাটা হতে হাকিমের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তায় প্রঃওয়াল নির্মান।

            ০৬                   ১। নেপালপাড়া আজিজ মাষ্টারের বাড়ী হতে মালেকের বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।

২। চৌবাড়িয়া হতে ধর্মহাটা সাপের খামার পর্যন্ত কাচা রাস্তা।

৩। সাইরপুকুর মুতাহারের বাড়ী হতে মটবাড়ী পর্যন্ত মাটির রাস্তা।      ১। দেবেরপাড়া বিলাতের  বাড়ী হতে আতালিমের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। দেবেরপাড়া এমদাদের বাড়ী হতে একরালের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং         ১। নেপালপাড়া খোদা বক্স এর বাড়ী হতে বজলুর বাড়ী পর্যন্ত প্রঃওয়াল নির্মান।

২। দেবেরপাড়া দুলালের বাড়ী হতে তমিরের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তায় প্রঃওয়াল নির্মান।          ১। আফিপাড়া এসমতের বাড়ী হতে নাজিমের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। নেপালপাড়া বজলুর বাড়ী হতে পারঘাটা ব্রীজ পর্যন্ত কাচা রাস্তা।

৩। দেবেরপাড়া বিলাতের বাড়ী হতে মটবাড়ী পর্যন্ত কাচা রাস্তা।

            ০৭        তুরাপুর জালালের দোকান থেকে শফিকুল হাজীর বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।      ১। করমজা আকবরের বাড়ীর পার্শ্বে হাসেমের পুকুরপাড়ে রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। তেতুলিয়া খানের মোড় হতে দিজেনের বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।      ১। তুরাপুর রাজ্জাকের বাড়ী হতে কৈপুকুর পর্যন্ত পাকা রাস্তা।

২। করমজা মধ্যপাড়া মালেকের বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। তেতুলিয়া জসিমের বাড়ী হতে ক্রসিং বাধ পর্যন্ত পাকা রাস্তা।         ১। তেতুলিয়া মোড়ে ভোলা পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। করমজা মধ্যপাড়া মসজিদের রাস্তার ধারে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। তেতুলিয়া সাজাহানের বাড়ী স্কুল পর্যন্ত পাকা রাস্তা।         ১। তেতুলিয়া ্আক্তারের বাড়ীর পার্শ্বে পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। তেতুলিয়া আক্তারের বাড়ী হতে মান্নানের বাড়ী পর্যন্ত পাকা রাস্তা।

            ০৮                   ১। ধর্মহাটা ধরণী মাষ্টারের বাড়ীর নিকট আতির পুকুরের পাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।(২০০ ফুট)

২। ধর্মহাটা বদির বাড়ী হতে মধ্যপাড়া জামে মসজিদ ভায়া ধরণী মাষ্টারের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং        ১। ঘিপাড়া মোড় হতে আইয়ুব দোকানদারের বাড়ী ভায়া মোশারফের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। ধর্মহাটা ধরনী মাষ্টারের বাড়ী হতে পবিত্র মাষ্টারের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং            ১। ধর্মহাটা আইয়ু ঘোষের বাড়ী হতে কুমড়া পুকুর পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। ধর্মহাটা পবিত্র মাষটারের বাড়ী হতে মধ্যপাড়া ওবাইদুল হাজীর বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

৩। ঘিপাড়া রশিদের বাড়ীর নিকট প্রঃওয়াল নির্মান। ১। ঘিপাড়া নান্নাকুড়ি পুকুরের ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। ধর্মহাটা কুক্যালকুড়ি পুকুরের ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। ধর্মহাটা বারী হাজীরবাড়ী হতে বাদলের বাড়ী পর্যনত ব্যাটস্ ফিলিং

            ০৯       ১। হুজুরীপাড়া সেন্টুর মোড় হতে বাজিতপুর কবর স্থান পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং।

২। কবিরাজপাড়া  মান্নানের বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।         ১। বাজিতপুর আবেদের বাড়ী থেকে কবর স্থান পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলিং রাস্তা।

২। বাজিতপুর এমাজের বাড়ী হতে উমেদের বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ রাস্তা।

৩। হুজুরীপাড়া পিয়ারুলের বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান

            ১।  বাজিতপুর লুৎফরের পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। বাজিতপুর নফরের  বাড়ী হতে জামতলা পর্যন্ত মাটির রাস্তা।

৩। বাজিতপুর গাফ্ফারের বাড়ী হতে আজিজের বাড়ী ভায়া  খলিলের বাড়ী হতে হবির বাড়ী পর্যন্ত ব্যাটস্ ফিলি।   ১। সোহরাবের বাড়ী হতে ডাংপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত  ব্যাটস্ রাস্তা।

২। বাজিতপুর ফজলুর বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। বাজিতপুর আফতাব মিস্ত্রির বাড়ীর নিকট রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান      ১। হুজুরীপাড়া বানক পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

২। বাজিতপুর আবুর পুকুরপাড়ে(চকচকে) রাস্তার ধারে প্রঃওয়াল নির্মান।

৩। বাজিতপুর সফেরের বাড়ীর নিকট বড়পুকুরপাড়ে প্রঃওয়াল নির্মান।

 

                       লক্ষ্য-০৮- জলবায়ু বিষয়ে পদক্ষেপ

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাব বিষয়ে গন সচেতনতা বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে সমাবেশের ব্যবস্থা          সরকারী রাস্তার ধারে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী গ্রহন। চিমনি বা ড্রাম ইটভাটার পরিবর্তে অটো বা হাওয়া ভাটা চালু করার বিষয়ে ভাটা মালিকদের উৎসাহিত করা।            সরকারী রাস্তার ধারে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী গ্রহন।     সরকারী রাস্তার ধারে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী গ্রহন।

 

              লক্ষ্য-০৯-  টেকসই উন্নয়নের জন্য অংশীদারিত্ব

 

 

ক্রমিক নং          ওয়ার্ড নং           ২০১৫-১৬         ২০১৬-১৭         ২০১৭-১৮         ২০১৮-১৯        ২০১৯-২০

০১        ১-৯      উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের অংশগ্রহন করানো।           স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে উন্নয়ন তদারকী কমিটি গঠন করে কাজের তদারকী বৃদ্ধি করা।          এলজিইডি অফিসের মাধ্যমে ্উন্নয়ন প্রকল্পের টেকসই প্রাক্কলন প্রস্তত করা।        উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সর্বসাধারণের মতামত গ্রহন।     সরকারী/ বেসরকারী সংস্থাগুলোকে উন্নয়ন কাজে অংশিদারিত্ব করানো।

 

 

হুজুরীপাড়া  ইউনিয়নের ৮০% জনগন কৃষির উপর নির্ভরশীল। সারা বছর এলাকার জনগণ কৃষিকাজে ব্যস্ত থাকে। ইউপির টেকস্ই উন্নয়ন(এসডিজি) পরিকল্পনা প্রণয়ন কাজে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার অংশগ্রহণকারীদের উপস্থিতি ছিল কষ্টসাধ্য। এছাড়া কর্মশালায় উপস্থিত অংশগ্রহণকারীদের মন্তব্য ছিল এরকম “অনেকে আমাদের কাছ থেকে লিখে নিয়ে যায়, কিন্তু কোন কাজ হয়না”। এ জাতীয় কথা প্রতিনিয়ত শুনতে হয়েছে।

 

লার্নিংঃ

যে কোন কার্যক্রম বাস্তবায়নে সহায়তাকারীর ভূমিকা কার্যক্রমকে পূর্ণাঙ্গ রূপদানে সহায়তা করে। যার দৃষ্টান্ত  টেকস্ই উন্নয়ন(এসডিজি)পরিকল্পনা প্রণয়ন। হুজুরীপাড়া  ইউপির বিভিন্ন শ্রেণীর জনগনের সক্রিয় অংশগ্রহণ ও মতামত প্রদানের ফলে উক্ত কার্যক্রম সঠিকভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে।

 

উপসংহারঃ

হুজুরীপাড়া  ইউনিয়নের জনগনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সার্বিক অংশগ্রহন ও মতামতের মাধ্যমে ইউপির দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত কর্ম পরিকল্পনার কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা হয়। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর জনগোষ্ঠী উক্ত কাজে অংশগ্রহনের ফলে ইউপির গ্রাম ও ওয়ার্ড ভিত্তিক সমস্যা, সামাজিক ইস্যু চিহ্নিতকরন, ইস্যু অনুযায়ী সমস্যা সমাধানে পরিকল্পনা গ্রহণ করা সম্ভব হয়েছে। ভবিষ্যতে এলাকার সার্বিক উন্নয়নের জন্য যে পরিকল্পনা  প্রণয়ন করা হলো তা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়িত হলে হুজুরীপাড়া  ইউনিয়ন মডেল ইউনিয়ন হিসাবে সর্বজনের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পাবে। 

 

মো: গোলাম মোস্তফা

(চেয়ারম্যান)

২ নং হুজুরীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ

পবা,রাজশাহী

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter